মান্দি জীবনধারা নিয়ে নির্মিত নাটক মাতব্রিং

image
ছবি: সংগৃহীত

প্রকাশ: ২০১৯/০৬/১৬ ০৩:২২

‘‘আমি তো ভূমির জাতক/ ভূমি আমার নয়/ আমিই ভূমিই/ হায়রে মান্দিয়ানা/ হায়রে পাহাড়িয়ানা।’’ কথাগুলো মাতব্রিং-এর। যশোর জেলার বিবর্তন নাট্যদলের একটি নাটকের নাম মাতব্রিং। নাটকটি রচনা করেছেন সাধনা আহমেদ, নির্দেশনায় রয়েছেন জাহাঙ্গীর নগর বিশ্ববিদ্যালয়ের নাট্যতত্ত্ব বিভাগের চেয়ারম্যান ইউসুফ হাসান অর্ক।

নাটকটি মূলত মান্দি জনগোষ্ঠীর জীবন কাহিনী নির্ভর রচনা। মান্দি’রা প্রতিনিয়ত ভূমি থেকে উচ্ছেদ-উদ্বাস্তুর শিকার হচ্ছেন, এ বাস্তব চিত্রটিই নাটকটিতে তুলে ধরা হয়েছে। পাশাপাশি প্রেমকে প্রাধান্য দিয়ে দুই নর-নারীর অনবদ্য প্রেম কাহিনী আশ্রয় করে গল্পটি এগিয়ে যায়।

আদিবাসী মান্দি গ্রাম্য সংস্কৃতি ভোজের উৎসব, নাচ-গান, আচার-বিশ্বাসসহ নানান কথা, উপকথা ঠাঁই পেয়েছে নাটক মাতব্রিং-এ। বন জঙ্গল আর আগের মতো ব্যবহার করা যায় না, মান্দিদের ভূমি বন জঙ্গল তাঁদের নিবাস এখন সরকার কেড়ে নিচ্ছে, সরকারের দখলে যাচ্ছে, এই সত্যের মুখোমুখি দাঁড়িয়ে আদিবাসীরা তাঁদের নিজস্বতা ছেড়ে দিন দিন নগর জীবনে আসতে বাধ্য হচ্ছে।

২০১৭ সালের ৯ সেপ্টেম্বর যশোর শিল্পকলা একাডেমিতে নাটকটির উদ্বোধনীর মঞ্চায়ন অনুষ্ঠিত হয়। এরপর সুনামের সাথে দেশে বিদেশে অনেক মঞ্চস্থ হয়েছে, ভারতের আসাম, শান্তিপুর, দিল্লি, বিহার, উড়িষ্যা কলকাতা প্রভৃতি জায়গায় নাটকটি মঞ্চস্থ হয়েছে। প্রাচ্য কোলকাতা আয়োজিত ‘পুবের নাট্য গাঁথা’য় অংশগ্রহন করেও নাটকটি বেশ খ্যাতি অর্জন করেছে।

২০১৮ সালে গঙ্গা যমুনা সংস্কৃতি উৎসবেও নাটকটি মঞ্চস্থ হয়। সেখানেও মাতব্রিং বেশ জনপ্রিয়তা পায়।

২০১৮ সালের ১৭ ফ্রেব্রুয়ারী থেকে ৮ এপ্রিল পর্যন্ত টানা ৫০ দিন ধরে চলা ভারতের ন্যাশনাল স্কুল অব ড্রামা’র (এনএসডি) আয়োজনে অনুষ্ঠিত থিয়েটার অলিম্পিকেও মাতব্রিং মঞ্চস্থ হয়। ভারতের বিভিন্ন শহরে চলে বিশ্ব থিয়েটারের এই আয়োজন এবং পৃথিবীর সেরা ৫০০ নাটক মঞ্চস্থ হয়। থিয়েটার অলিম্পিকে প্রথম বারের মতো বাংলাদেশ অংশগ্রহন করে। আয়োজকদের কাছ থেকে ৭টি নাটক মঞ্চস্থ করতে আমন্ত্রন পেয়েছিল বাংলাদেশ, যার মধ্যে ছিল বিবর্তন নাট্যদলের ‘মাতব্রিং’।

শেয়ার করুন

কমেন্টবক্স

আপনিও স্ব মতামত দিন