বন বিভাগ সৃষ্টি হওয়ার পরই বন ধ্বংস শুরু হয়েছে

image

প্রকাশ: ২০১৯/০৬/২৭ ০০:৩৯

বন বিভাগ সৃষ্টি হওয়ার পরই বন ধ্বংস শুরু হয়েছে বলে মনে করেন চাকমা সার্কেল প্রধান ব্যারিস্টার রাজা দেবাশীষ রায়। ‘বন আইন, বিধিমালা ও বনবাসী মানুষের অধিকার’ শীর্ষক এক গোলটেবিল বৈঠকে তিনি এ মন্তব্য করেন। ভূমি অধিকার নিয়ে কাজ করা সংগঠন অ্যাসোসিয়েশন ফর ল্যান্ড রিফর্ম অ্যান্ড ডেভেলপমেন্ট (এএলআরডি) বুধবার রাজধানীর জাতীয় প্রেসক্লাবে এর আয়োজন করে।

গোলটেবিল বৈঠক অনুষ্ঠানে বাংলাদেশের বন, বন আইন ও বিধিমালার ঐতিহাসিক প্রেক্ষাপট নিয়ে মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন দেবাশীষ রায়। তিনি তাঁর বক্তব্যে বন বিভাগের দিকে আঙ্গুল তুলে বলেন, ‘যখন বন ছিল, তখন বন বিভাগ ছিল না। বন বিভাগ সৃষ্টি হওয়ার পরই বন ধ্বংস শুরু হয়েছে।’

বন রক্ষায় বন বিভাগের তীব্র সমালোচনা করে তিনি আরো বলেন, ‘আমাদের বন বিভাগ গাছ লাগানো ভালো বোঝে কিন্তু বন বোঝে কি না তা নিয়ে সন্দেহ আছে।’

প্রবন্ধ পাঠে দেবাশীষ রায় আরো বলেন, ‘১৯২৭ সালে ব্রিটিশ আমলে বন আইন করা হয়। বৃটিশ সরকার বন আইন করেছিল বন থেকে রেলওয়ে ও জাহাজের জন্য কাঠ সংগ্রহ করার জন্য। তাদের বনের প্রতি কোনো দায়বদ্ধতা ছিল না। আজও সেই আইন কীভাবে আমাদের দেশে থাকতে পারে সেটি প্রশ্ন।’

আলোচনা অনুষ্ঠানে বেসরকারি সংগঠন বাংলাদেশ পরিবেশ আইনবিদ সমিতির (বেলা) প্রধান নির্বাহী রিজওয়ানা হাসান অংশ নিয়ে বলেন, ‘কক্সবাজারে ৮০০ একর বন কেটে বিসিএস কর্মকর্তাদের জন্য একাডেমি করবে সরকার। ওখানে যেসব কর্মকর্তা প্রশিক্ষণ পাবেন, সেসব কর্মকর্তার বনের প্রতি কোনো মায়া জন্মাবে না।’

এএলআরডির উপ-নির্বাহী পরিচালক রওশন জাহান মনির স্বাগত বক্তব্যে অনুষ্ঠানে অনান্যের মধ্যে আলোচনায় অংশ নেন বাংলাদেশ আদিবাসী ফোরামের সাধারণ সম্পাদক সঞ্জীব দ্রং, সুপ্রিম কোর্টের সাবেক বিচারপতি নিজামুল হক নাসিম, এএলআরডির নির্বাহী পরিচালক শামসুল হুদা প্রমুখ।

শেয়ার করুন

কমেন্টবক্স

আপনিও স্ব মতামত দিন