শহর ছেড়ে গ্রামে আসা আদিবাসীদের খাদ্য সহায়তা দরকার

image
ব্যারিস্টার রাজা দেবাশীষ রায়। ফাইল ছবি।

প্রকাশ: ২০২০/০৬/১৫ ০২:০৮

করোনার কারণে শহরের বিপুল সংখ্যক আদিবাসী কাজ হারিয়ে গ্রামে ফিরেছে। শহর ছেড়ে যাঁরা এলাকায় ফিরেছেন, তাদের অনেকে কাজ পাচ্ছেন না, তাঁদের জন্যে সরকারের খাদ্য সহায়তা দরকার। রোববার (১৫ জুন), এক ওয়েবিনারে রাঙামাটি চাকমা সার্কেলের রাজা ব্যারিস্টার দেবাশীষ রায় এসব কথা বলেন।

প্রথম আলো ও বেসরকারি সংস্থা অ্যাসোসিয়েশন ফর ল্যান্ড রিফর্ম এন্ড ডেভেলপমেন্ট (এএলআরডি) ‘কৃষির উন্নয়নে প্রান্তিক জনগোষ্ঠী, কৃষক ও নারীর অবদান’ শীর্ষক এ আলোচনা সভার আয়োজন করে।

প্রথম আলোর সহকারী সম্পাদক ফিরোজ চৌধুরী সঞ্চালিত বৈঠকে মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় অধ্যাপক মইনুল ইসলাম। তিনি বলেন, গত এক যুগে দেশের কৃষি খাতে বিপ্লব ঘটে গেছে। কৃষকের অক্লান্ত পরিশ্রম আর কৃষি উপকরণের সহজপ্রাপ্যতা এবং সরকারের সঠিক নীতির কারণে এই সফলতা এসেছে। চাল, আলু, সবজি ও মাছের মতো প্রধান খাদ্য উৎপাদনে বাংলাদেশ স্বয়ংসম্পূর্ণ হয়েছে। এমনকি চাল উৎপাদনে বিশ্বে চতুর্থ, স্বাদুপানির মাছে তৃতীয়, ফল ও সবজি উৎপাদনে বাংলাদেশ বিশ্বের শীর্ষস্থানীয় দেশগুলোর তালিকায় উঠে এসেছে। এই অর্জনকে ধরে রাখতে হলে কৃষকের উৎপাদিত পণ্যের ন্যায্যমূল্য নিশ্চিত করতে হবে।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে ভূমিমন্ত্রী সাইফুজ্জামান চৌধুরী বলেন, কৃষি ও কৃষকের উন্নয়নে সরকারের নেওয়া উদ্যোগের ফলেই বাংলাদেশ খাদ্যে স্বয়ংসম্পূর্ণ হতে পেরেছে। কৃষির এই উন্নয়নকে ধরে রাখতে সরকার আগামী ৫০ বছরের পরিকল্পনা নিয়ে এগোচ্ছে। এ জন্য ভূমি আইন পর্যালোচনার উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে এবং খাসজমির জন্য একটি তথ্যভান্ডার তৈরি করা হয়েছে।

বাংলাদেশ আদিবাসী ফোরামের সাধারণ সম্পাদক সঞ্জীব দ্রং বলেন, সমতল ও পাহাড়ের প্রান্তিক আদিবাসীদের উন্নয়ন না হলে সামগ্রিকভাবে দেশের উন্নয়ন টেকসই হবে না। পিছিয়ে পড়া আদিবাসী মানুষের জন্যে নীতিমালা থাকা দরকার।

এলআরডির উপ-নির্বাহী পরিচালক রওশন জাহান বলেন, অনেক আদিবাসী জনগোষ্ঠীর মানুষের জমি খাস হিসেবে তালিকাভুক্ত হচ্ছে। বন বিভাগ থেকেও তাঁদের বিরুদ্ধে নানা ধরনের হয়রানিমূলক মামলা দেওয়া হচ্ছে। এগুলো বন্ধ করতে হবে।

বৈঠকে অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য দেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সমাজবিজ্ঞান অনুষদের ডিন সাদেকা হালিম, বেসরকারি সংগঠন ‘নিজেরা করি’র সমন্বয়কারী খুশী কবির, এলআরডির নির্বাহী পরিচালক শামসুল হুদা, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অর্থনীতি বিভাগের অধ্যাপক শফিক উজ জামান প্রমুখ। বক্তারা করোনাকালে কৃষিই বড় ভরসা বলে উল্লেখ করেন।

শেয়ার করুন

কমেন্টবক্স

আপনিও স্ব মতামত দিন