গাইবান্ধা জেলার গোবিন্দগঞ্জের সাঁওতাল পল্লীতে হামলা, অগ্নিসংযোগ, লুটপাট, হত্যার বিচার ও বাপ-দাদার সম্পত্তি ফেরতসহ ৭ দফা দাবি বাস্তবায়নের দাবি জানানো হয়েছে। শনিবার (৮ ফেব্রুয়ারী), দুপুরে গোবিন্দগঞ্জ-দিনাজপুর আঞ্চলিক মহাসড়কের কাটামোড় এলাকায় আয়োজিত এক মানববন্ধনে এ দাবি জানানো হয়।

সাহেবগঞ্জ-বাগদাফার্ম ভূমি উদ্ধার সংগ্রাম কমিটি ও আদিবাসী-বাঙালি সংহতি পরিষদ কর্তৃক আয়োজিত সভায় সভাপতিত্ব করেন ডা. ফিলিমন বাস্কে। এতে অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন ভূমি উদ্ধার সংগ্রাম কমিটির সাধারণ সম্পাদক জাফুরুল ইসলাম, সাংগঠনিক সম্পাদক স্বপন শেখ, সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক সুফল হেমব্রম, মামলার বাদী থমাস হেমব্রম, রুমিলা কিস্কু, অলিভিয়া হেমব্রম প্রমুখ।

মানববন্ধনে বক্তারা পেশকৃত ৭ দফা দাবি বাস্তবায়নের জোর দাবি জানান। দাবি বাস্তবায়ন করা না হলে কঠোর আন্দোলন গড়ে তোলা হবে বলেও বক্তারা হুশিয়ারী জারি করেন। এর আগে মাদারপুর ও জয়পুরপাড়া সাঁওতাল পল্লী থেকে শত শত সাঁওতাল আদিবাসী বিক্ষোভ মিছিল নিয়ে মানববন্ধনে যোগ দেন।

উল্লেখ্য, গত ২০১৬ সালের ৬ নভেম্বর সাহেবগঞ্জ-বাগদাফার্মের ইক্ষু খামার এলাকায় চিনিকল শ্রমিক, আদিবাসী ও পুলিশের ত্রিমুখী সংঘর্ষ হয়। এতে পুলিশের গুলিতে ৩ সাঁওতাল নিহত হন। আহত হন উভয় পক্ষের কমপক্ষে ৩০ জন। এ ঘটনায় থমাস হেমব্রম বাদী হয়ে ৩৩ জনের নাম উল্লেখ করে অজ্ঞাতনামা ৫০০-৬০০ জনকে আসামী করে মামলা দায়ের করেন। ঘটনার ৩ বছর পেরিয়ে গেলেও এখনো কোন আসামী গ্রেপ্তার হয়নি। আদিবাসীরা পায়নি বাপ-দাদার সম্পত্তি।

একটি উত্তর ত্যাগ

Please enter your comment!
Please enter your name here