তিন কৃতি আদিবাসী ফুটবলার বাঁ দিকে থেকে তপু বর্মন, সুশান্ত ত্রিপুরা (উপরে), বাবলু হেমব্রম (নিচে ডানে)।

খেলাধূলা ডেস্ক: ২০২২ সালের বিশ্বকাপ প্রাক-বাছাই পর্ব ও এশিয়া কাপ-২০২৩ খেলতে বাংলাদেশ জাতীয় ফুটবল দল ঘোষণা করেছেন কোচ জেমি ডে। ৩৬ সদস্যের ঘোষিত দলে ডাক পেয়েছেন আদিবাসী সম্প্রদায়ের তিন কৃতি ফুটবলার।

জাতীয় ফুটবল দলে জায়গা করে নেওয়া তিন আদিবাসী খেলোয়াড় হলেন- বাংলাদেশ পুলিশের বাবলু ম্যাথিউজ হেমব্রম, বসুন্ধরা কিংসের তপু বর্মন এবং সুশান্ত ত্রিপুরা। তপু ও সুশান্ত খেলেন রক্ষণভাগে এবং বাবলু খেলেন ফরোয়ার্ডে।

আগামী ৭ আগষ্ট থেকে গাজীপুরের সারাহ রিসোর্টে শুরু হবে জামাল ভূঁইয়াদের ক্যাম্প।

জাতীয় দলে ডাক পাওয়ায় এই তিনজন খেলোয়াড় আদিবাসী মহলে রীতিমতো প্রশংসায় ভাসছেন। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে তাদের উষ্ণ অভিনন্দন ও শুভেচ্ছা জানিয়েছেন আদিবাসী ক্রীড়াবিদ প্রশান্ত কেরকেটা।

তবে বাবলু হেমব্রমের বেলায় একদিকে যেমন বইছে প্রশংসার বন্যা অন্যদিকে সমালোচনার মুখে পড়েছেন তালিকায় নিজ জাতিসত্তার টাইটেল না আসায়।

এ নিয়ে সাঁওতাল সম্প্রদায়ের প্রগতিশীল আদিবাসী লেখক সুবোধ এম বাস্কে বলেন, ‘খুব ভাল, এই প্রথম সান্তাল যুব বাংলাদেশ জাতীয় ফুটবলে সুযোগ পেল। কিন্তু মাথিউজ বাবলু নামের পর পদবি কোথায় হারিয়ে গেল? সাংবাদিকরা এই বিষয়টি কেন এড়িয়ে গেলেন? আমাদের নামের চেয়েও আমাদের পদবিটা জাতিসত্তার প্রধান ব্যান্ড। অবশ্য ইদানিং পদবি না লেখার হিড়িক বাড়ছে। এখানে বাবলুর কোন দোষ দেখছিনা, প্রশ্নটা সাংবাদিকের কাছে। অভিনন্দন বাবলু।’

একটি উত্তর ত্যাগ

Please enter your comment!
Please enter your name here