পার্বত্য চট্টগ্রামের পাহাড়ি জুম খেতে জীবিকা নির্বাহ করা অন্যান্য জুম্ম জননীর মতোই রেংসাতি ত্রিপুরার জীবন। বাড়ি পার্বত্য জেলা বান্দরবান থানাপাড়ার রুমা বাজার এলাকায়। স্বামী- ভারত চন্দ্র ত্রিপুরা। স্বামী-সন্তান নিয়ে রেংসাতির অতি সাধারণ সরল জীবনযাপন। এই জীবনে কোনো বাড়তি বিলাসিতা, উচ্চাকাঙ্ক্ষা নেই। জীবন হয়তো জীবনের মতো সরল পথে চলতো পারতো কিন্তু মাঝে বাঁধ সাধলো জরায়ু ক্যান্সার নামের এক ক্ষুদ্র শক্তিশালী জীবাণু।

চলতি বছরের মে মাসে মালুমঘাট খ্রিস্টিয়ান মেমোরিয়াল হাসপাতালে তাঁর তলপেটে অপারেশন হয়। অপারেশনের পর তলপেটের ভেতরে টিউমারের মতো মোটা সজীব একটি অংশ পাওয়া যায়। যা পরবর্তীতে পরীক্ষার জন্যে ঢাকায় পাঠানো হয়। পরীক্ষায় জরায়ু ক্যান্সার বলে ডাক্তার নিশ্চিত করেন। বর্তমানে তিনি একজন ক্যান্সার বিশেষজ্ঞ ডাক্তারের তত্ত্বাবধানে চট্টগ্রাম ডায়াগনোস্টিক পপুলার সেন্টারে চিকিৎসাধীন রয়েছেন।

ডাক্তারের ভাষ্যমতে, রেংসাতিকে বাঁচাতে চারটি ইঞ্জেকশন পুশ করতে হবে। যার মূল্য ১৮’০০০ টাকা (প্রতি)। পরিপূর্ণ সুস্থ হতে প্রায় ১’৫০’০০০ টাকা প্রয়োজন।

এদিকে এই ব্যয় বহুল চিকিৎসার খরচ একমাত্র উপার্জনক্ষম জুমিয়া পিতার পক্ষে বহন করা খুবই কঠিন হয়ে পড়েছে। ইতোমধ্যেই পরিবারের সকল স্থাবর-অস্থাবর সম্পত্তি বিক্রি করে দেয়া হয়েছে চিকিৎসা ব্যয়ে।

করোনাকালের দুঃসহ এই সময়ে প্রিয় জননীর জরায়ু ক্যান্সার চিকিৎসায় আর্থিক সাহায্য নিয়ে এগিয়ে আসতে সমাজের সকল শ্রেণী-পেশার মানুষের প্রতি মানবিক আবেদন জানিয়েছেন ছেলে টনি ত্রিপুরা।

মানবিক সহায়তা পৌঁছে দিতে- ০১৫৫৩২২৯০৬১ (বিকাশ),০১৭৭৭১৮৮২৪৩ (রকেট)।

একটি উত্তর ত্যাগ

Please enter your comment!
Please enter your name here