প্রতীকি ছবি

ক্যাম্পাস প্রতিনিধি, চবি: চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ে (চবি) এক আদিবাসী শিক্ষার্থী যৌন নিপীড়নের শিকার হয়েছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। মঙ্গলবার আনুমানিক সন্ধ্যা ৭টায় ক্যাম্পাসের দুই নাম্বার গেট সংলগ্ন বাজারে এ ঘটনা ঘটে।

যৌন নিপীড়নের শিকার ওই শিক্ষার্থী বিশ্ববিদ্যালয়ের ইংরেজি বিভাগে অধ্যয়নরত। তিনি ঘটনার বর্ণনা নিজের ফেইসবুক ওয়ালে পোস্ট করেন। সেখানে তিনি জানান, এক্সাম থাকার কারণে ক্যাম্পাস বন্ধ থাকা সত্ত্বেও বিশ্ববিদ্যালয়ে বাসা ভাড়া করে থাকতে হচ্ছে। নিত্য প্রয়োজনীয় কাজে বাজারে বের হলে এলাকার এক বখাটে সাইকেলে চড়ে যৌন হয়রানি মূলক কথাবার্তা বলেন।

এমন যৌন নিপীড়নের ঘটনা প্রায়ই ঘটে বলেও জানা গেছে। এ বিষয়ে বাংলাদেশ ছাত্র ইউনিয়ন চবি সংসদের সাংগঠনিক সম্পাদক প্রত্যয় নাফাক বলেন, ভিক্টিমের সাথে আমার কথা হয়েছে। আমরা সাংগঠনিকভাবে কাল সকালে এ বিষয়ে কথা বলতে প্রক্টরের কাছে যাবো।

ছাত্র ইউনিয়নের এই নেতা আরও বলেন, ওই শিক্ষার্থী হলে থাকতো। ক্যাম্পাস বন্ধ থাকায় হল বন্ধ। কিন্তু তারপরও পরীক্ষা নেওয়া হচ্ছে। ক্যাম্পাস পুরোপুরি না খুলে পরীক্ষা নেওয়ার সিদ্ধান্তে এমন অনাকাঙ্ক্ষিত ঘটনা ঘটছে। এর দায় বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন এড়াতে পারে না।

পাহাড়ি ছাত্র পরিষদ চবি শাখার নেতা রোমেন চাকমা বলেন, এমন ঘটনা যাতে না ঘটে এজন্যই আমরা ২০১৮ সালে তৎকালীন প্রক্টরকে স্মারকলিপি দিয়েছি। কিন্তু তাতে কাজ হয় নাই। এখন প্রক্টর যদি ক্যাম্পাসের বাইরের জায়গা বলে দায়িত্ব নিতে না চায় তাহলে আমাদেরকেই নিজেদের বোনদের এবং নিজেদের নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে ব্যবস্থা নিতে হবে।

যৌন নিপীড়নের খবরে সাবেক ছাত্রফ্রন্ট নেতা সুব্রত মন্ডল বলেন, সারদেশে যেখানে ধর্ষণ ও যৌন হয়রানির বিরুদ্ধে আন্দোলন গড়ে উঠেছে সেই মুহুর্তে আমার ক্যাম্পাসে আমার বোন নিরাপদ নয় এটা আমাদের জন্য খুবই লজ্জার। সঠিক বিচার এবং প্রশাসনের তদারকির অভাবে দিন দিন যৌন  হয়রানির ঘটনা বাড়ছে বলে মনে করেন এই ছাত্রনেতা।

1 মন্তব্য

একটি উত্তর ত্যাগ

Please enter your comment!
Please enter your name here