নিহত আদিবাসী গবেষক রাইলি ফ্রান্সিসকার্তো। ছবি: রয়টার্স

পৃথিবীর ফুসফুসখ্যাত মহাবন অ্যামাজনের গহীন অরণ্যে বসবাসরত আদিবাসীদের কাছে গিয়ে বুকে তীরবিদ্ধ হয়ে মারা গেছেন ব্রাজিলের শীর্ষ এক গবেষক। অ্যামাজনের আদিবাসীদের নিয়ে গবেষণা করে খ্যাতি পাওয়া এই বিশেষজ্ঞ আদিবাসীদের তীরে বিদ্ধ হয়েই মারা গেলেন বলে জানিয়েছে আন্তর্জাতিক সংবাদ মাধ্যম বিবিসি।

রাইলি ফ্রান্সিসকার্তো (৫৬) নামের এই বিশেষজ্ঞ ব্রাজিলের উত্তর-পশ্চিমাঞ্চলের রনডোনিয়া রাজ্যের প্রত্যন্ত অঞ্চলে বুধবার মারা গেছেন। দেশটির সরকারের আদিবাসী বিষয়ক সংস্থা ফুনাইয়ের কাজের অংশ হিসেবে অ্যামাজনের অরণ্যে একটি গোষ্ঠীর কার্যক্রম পর্যবেক্ষণ করতে গিয়েছিলেন তিনি।

প্রত্যক্ষদর্শীরা বলছেন, ফ্রান্সিসকার্তো এবং তার দল অ্যামাজনের একটি আদিবাসী গোষ্ঠীর কাছে পৌঁছানোর পর আক্রান্ত হন। সরকারি এই প্রতিনিধি দলের সঙ্গে পুলিশও ছিল। আদিবাসীরা চড়াও হলে তিনি পুলিশের একটি গাড়ির পেছনে আশ্রয় নেয়ার চেষ্টা করেন। কিন্তু এতেও শেষ রক্ষা হয়নি। আদিবাসীদের ছোঁড়া তীর ভেদ করে ফ্রান্সিসকার্তোর বুক।

প্রত্যক্ষদর্শী এক পুলিশ কর্মকর্তা বলেছেন, বুক থেকে তীরটি অপসারণ করতে সক্ষম হয়েছিলেন ফ্রান্সিসকার্তো। তীরটি তার বুকের ওপরের অংশে বিদ্ধ হয়।

সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে এক অডিও বার্তায় ওই কর্মকর্তা বলেন, তিনি কান্না করছিলেন, বুক থেকে তীরটি বের করে ফেলেছিলেন। তারপর প্রায় ৫০ মিটার দূরে গিয়ে ঢলে পড়ে শেষ নিশ্বাস ত্যাগ করেন তিনি।

ওই অঞ্চলের আলোকচিত্রী গ্যাব্রিয়েল উচিডা ফরাসী বার্তা সংস্থা এএফপিকে বলেন, কৌতারিও রিভার বিচ্ছিন্ন আদিবাসী গোষ্ঠীর জীবনাচরণ পর্যবেক্ষণে ফ্রান্সিসকার্তো সেখানে গিয়েছিলেন। গ্যাব্রিয়েল উচিডাও ঘটনাস্থলে ছিলেন। তিনি বলেন, এই গোষ্ঠীটি সেখানে শান্ত ছিল। কিন্তু হঠাৎ করেই তাদের সশস্ত্র পাঁচজনের একটি দল এসে হামলা চালায়। হামলায় ফ্রান্সিসকার্তো তীর বিদ্ধ হয়ে মারা যান।

একটি উত্তর ত্যাগ

Please enter your comment!
Please enter your name here